সামাজিক সমস্যা সমাধানে মোবাইল অ্যাপ: পুরস্কার পেল ১১টি দল

আজ সোমবার বিকেলে (৬ মার্চ, ২০১৭) রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয় সামাজিক সমস্যা সমাধান ও উন্নয়নের লক্ষ্যে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন তৈরির প্রতিযোগিতা ‘ব্র্যাকাথন’। এতে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর সভাপতি মোস্তফা জব্বার। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাকের অ্যাডভোকেসি ফর সোশ্যাল চেইঞ্জ, আইসিটি অ্যান্ড পার্টনারশিপ স্ট্রেনদেনিং ইউনিটের পরিচালক কেএএম মোর্শেদ, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-এর ফিল্ড অপারেশন্স বিষয়ক পরিচালক দেবাশিস সাহা প্রমুখ।

শেষ হলো ব্র্যাক আয়োজিত সামাজিক সমস্যা সমাধান ও উন্নয়নের লক্ষ্যে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন তৈরির প্রতিযোগিতা ‘ব্র্যাকাথন’। এবার আটটি বিভাগে ১১টি দল পুরস্কার পেয়েছে। বিজয়ী দলগুলো হলো:

নেটওয়ার্কিং ফর ইয়ং এপ্রেনটিসেজ বিভাগে ব্লু স্ক্রিন অব ডেথ, ই-কমার্স ফর এন্টারপ্রাইজেস বিভাগে টিম এওএস, মিল্ক গেইম বিভাগে টিম রিবুট, প্যারেন্টাল কেয়ার বিভাগে যৌথভাবে সাস্টˍহেক্সাকোর এবং কার্ডিনাল, স্কুল মনিটরিং টুল বিভাগে কোডেক্স ইউনিকর্ন এবং বাম্বেল বি, ওয়াটার লগিং ইন ঢাকা সিটি বিভাগে বুয়েটˍকোল্ডˍস্টিল, ফায়ার রেসপন্স বিভাগে বুয়েটˍফায়ারফাইটার্স, জেন্ডার অ্যাওয়ারনেস বিভাগে দ্য রোর।

আজ সোমবার বিকেলে (৬ মার্চ, ২০১৭) রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বিশিষ্ট অতিথিরা। এতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর সভাপতি মোস্তফা জব্বার, ব্র্যাকের অ্যাডভোকেসি ফর সোশ্যাল চেইঞ্জ, আইসিটি অ্যান্ড পার্টনারশিপ স্ট্রেনদেনিং ইউনিটের পরিচালক কেএএম মোর্শেদ, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-এর ফিল্ড অপারেশন্স বিষয়ক পরিচালক দেবাশিস সাহা, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের জেমস প্রি গ্রান্ট স্কুল অব পাবলিক হেলথের ডিন ও অধ্যাপক সাবিনা ফয়েজ রশিদ প্রমুখ।

মোস্তফা জব্বার তথ্য প্রযুক্তির গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, “তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে যে বিপ্লব ঘটে গেছে তাতে আমাদের সমস্যা আমাদেরকেই সমাধান করতে হবে। কানাডা, আমেরিকার দিকে তাকিয়ে থাকলে হবে না। আমাদের ১৬ কোটি মানুষের দেশ। এখানে ১৬ কোটি সমস্যা থাকতে পারে। প্রযুক্তির উদ্ভাবনী শক্তি কাজে লাগিয়ে আমাদের তরুণরাই এখন অনেক সমস্যার সমাধান করতে পারে।” কেএএম মোর্শেদ বলেন, “তরুণদের উদ্ভাবনা ও সৃজলশীলতাকে কাজে লাগাতে চায় ব্র্যাক। এ কারণেই আমরা এ উদ্যোগ নিয়েছি। আমি আশা করছি,আমাদের বাস্তব সমস্যার সমাধানে এই অ্যাপগুলো কাজে লাগবে।”

‘কোড ফর বাংলাদেশ’ শ্লোগানে গত ৮ জানুয়ারি থেকে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের আয়োজনে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়। এতে ২০০ আবেদনকারী দলের মধ্যে যাচাই-বাছাই শেষে ৪০ জনের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা করা হয়। এরপর গত ৩ ও ৪ মার্চ প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে গুণগত মান ও সমস্যার বাস্তব প্রয়োগের ভিত্তিতে ১৬ দলের মধ্য থেকে ১১টি দলকে চূড়ান্তভাবে বিজয়ী নির্বাচিত করা হয়। বিজয়ী দলের প্রত্যেককে পাঁচ হাজার ডলার অনুদান দেওয়া হয়।

আজ সোমবার বিকেলে (৬ মার্চ, ২০১৭) রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয় সামাজিক সমস্যা সমাধান ও উন্নয়নের লক্ষ্যে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন তৈরির প্রতিযোগিতা ‘ব্র্যাকাথন’। অনুষ্ঠান শেষে পুরস্কার হাতে বিজয়ীরা ফটো সেশনে অংশ নেন। এ সময় বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর সভাপতি মোস্তফা জব্বারসহ অন্য অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দল নির্বাচনে সামাজিক সমস্যার সহজ সমাধান ও ব্যবহারিক গুরুত্ব ও কার্যকারিতার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পরবর্তীকালে বিভিন্ন এই অ্যাপগুলোর আরো উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিবে ব্র্যাক।

এই প্রতিযোগিতার উদ্দেশ্য মানুষের জীবনযাত্রার উন্নয়নে মোবাইল ও ইন্টারনেটভিত্তিক নতুন নতুন ডিজিটাল প্রযুক্তির কার্যকর ব্যবহারকে অনুপ্রাণিত করা ও তরুণদের উদ্ভাবনি শক্তিকে আরো সম্পৃক্ত করা। এই আয়োজনে ব্র্যাকের সহযোগিতায় ছিল জেমস পি গ্র্যান্ট পাবলিক স্কুল, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল, বিডিনিউজ২৪ ডট কম, বিটস এবং ব্র্যাক নেট।

আমাদের কর্মস্থল

                

ব্র্যাক কুইজ

কোনটি দারিদ্র্য দূরীকরনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী?

বিকল্প যোগাযোগ পন্থা