কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অনুমোদন পেল ব্র্যাকের তৈরি গৃহকর্ম প্রশিক্ষণ মডেল

গৃহকর্ম প্রশিক্ষণের জন্য ব্র্যাকের তৈরি প্রশিক্ষণসূচি ও উপকরণকে অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড (বিটিইবি)। সোমবার (৯ই সেপ্টেম্বর) সকালে ঢাকার আগারগাঁওয়ে বিটিইবি কার্যালয়ে আয়োজিত এক কর্মশালায় দুই সংস্থার প্রতিনিধিরা পর্যালোচনার মাধ্যমে মডেলটির চূড়ান্ত রূপ দেন। এর পরপরই এটি সরকারি অনুমোদন পায়। প্রশিক্ষণ সহায়িকাটি বিটিইবি তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করবে, যা অন্যান্য সংস্থা তাদের প্রশিক্ষণকাজে ব্যবহার করতে পারবে। কোনো সংস্থা এ বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করলে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা বিনিময়েও সহায়তা করবে ব্র্যাক।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সচিব ও চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মো. মাহাবুবুর রহমান। আরও উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাকের দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচির প্রধান তাসমিয়া তাবাসসুম রহমানসহ দুই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাবৃন্দ।

কর্মশালায় জানানো হয়, বাংলাদেশের অনানুষ্ঠানিক খাতের অর্থনীতিতে গৃহকর্ম একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। এই পেশায় নিয়োজিতদের অধিকাংশই নারী। নারীদের একটি বড় অংশই আবার মেয়েশিশু। দেশে মোট গৃহকর্মীর সঠিক সংখ্যা জানা যায় না, তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিট পরিচালিত একটি যৌথ গবেষণায় (২০১৯) এ সংখ্যাটি প্রায় ৪০ লাখ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশী অভিবাসী শ্রমিকদের ১২.১% নারী গৃহশ্রমিক। বাংলাদেশ জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে ১০ লাখেরও বেশি শ্রমিক বিদেশে গমন করেছিলেন। এদের মধ্যে প্রায় সোয়া এক লাখ ছিলেন নারী গৃহশ্রমিক।

গৃহশ্রম বাংলাদেশের মানুষের জন্য একটি বড় আয়ের উৎস হলেও এ বিষয়ে প্রশিক্ষণের সুযোগ নেই বললেই চলে। এই পরিপ্রেক্ষিতে ব্র্যাক দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচি (এসডিপি) পরীক্ষামূলকভাবে ‘চাকরি’ (চুজিং হাউজহোল্ড ওয়ার্ক অ্যাজ ক্যারিয়ার টু রেইজ ইনকাম) নামে একটি প্রশিক্ষণমূলক প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

ব্র্যাকের দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচির প্রধান তাসমিয়া তাবাসসুম রহমান বলেন, এই প্রকল্পের তিনটি প্রধান উদ্দেশ্য, যথা সুবিধাবঞ্চিত তরুণ নারী-পুরুষদের পেশাদার ও দক্ষ গৃহকর্মী হিসেবে গড়ে তোলা, তাদের নিরাপদ কর্মক্ষেত্রে নিয়োজিত করা এবং গৃহকর্ম প্রশিক্ষণ বিষয়ে মডেল প্রশিক্ষণসূচি ও উপকরণ তৈরি করা।

এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে শুরু হওয়া নয় মাসের এ প্রকল্পটি বর্তমানে শেষ পর্যায়ে রয়েছে। প্রকল্পকালীন তিনটি পর্বে মোট ৩০০ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদানের লক্ষ্যে রাজধানীর কড়াইল ও হাজারীবাগে দুটি উন্নতমানের প্রশিক্ষণকেন্দ্র পরিচালনা করছে ব্র্যাক। প্রশিক্ষণ শেষে তাদের কর্মসংস্থানের জন্য কাজ করছে সেবা ডট এক্সওয়াইজেড (sheba.xyz)।

আমাদের কর্মস্থল

                

ব্র্যাক কুইজ

কোনটি দারিদ্র্য দূরীকরনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী?

বিকল্প যোগাযোগ পন্থা